মঙ্গলবার , ৩১শে মার্চ, ২০২০ ইং

Ateam IT Solution

সাপাহার শিরন্টী ইউনিয়নের গ্রাম আদালত দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে

সাপাহার শিরন্টী ইউনিয়নের গ্রাম আদালত দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে

সাপাহার শিরন্টী ইউনিয়নের গ্রাম আদালত
সাপাহার শিরন্টী ইউনিয়নের গ্রাম আদালত

গোলাপ খন্দকার,সাপাহার(নওগাঁ)প্রতিনিধিঃ নওগাঁর সাপাহার গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর কাছে দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে সাপাহার উপজেলার শিরন্টী ইউনিয়নের গ্রাম আদালত। আদালতগুলোতে মামলার জট যেখানে বেড়েই চলেছে সেখানে প্রায় শতভাগ মামলা নিষ্পত্তির মাধ্যমে মামলার জট
নিরসনে পথ দেখাচ্ছে শিরন্টী গ্রাম আদালত। আর উচ্চ আদালতে মামলার জট নিরসন, ছোটখাটো দেওয়ানি ও ফৌজদারি বিরোধ স্থানীয়ভাবে নিষ্পত্তি ও অল্প সময়ে স্বল্প খরচে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীকে বিচার প্রাপ্তিতে সুবিধা দিতেই ইউনিয়ন পর্যায়ে গ্রাম আদালত চালু করে সরকার। ইউএনডিপি ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সহযোগিতায় বাস্তবায়ন সহযোগী সংস্থা ইকো সোস্যাল ডেভরপমেন্ট অর্গানাইজেশন(ইএসডিও) নওগাঁর সাপাহারে গ্রাম
আদালত সক্রিয়করণ (২য় পর্যায়) প্রকল্পের অধীনে উপজেলার শিরন্টী ইউনিয়নে ২০১৭ সাল থেকে গ্রাম আদালতের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।উপজেলার শিরন্টী ইউনিয়নে ২০১৭ সালের জুলাই থেকে ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রিঃ পর্যন্ত গ্রাম আদালতে প্রায় ২৩৮ টি মামলা গ্রহণ করেন গ্রাম আদালত। যার মধ্যে ২৩৪ টি মামলা নিষ্পত্তি করা হয়েছে। এর মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্ত পক্ষকে ৭ লক্ষ২৬ হাজার ৫০ টাকা আদায়
করে দেওয়া হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা জানান, গ্রাম আদালত আইন ২০০৬(সংশোধি২০১৩) এবং গ্রাম আদালত বিধিমালা ২০১৬ অনুযায়ী সর্বোচ্চ ৭৫ হাজার টাকা মূল্য মানের ফৌজদারি ও দেওয়ানি মামলা নিষ্পত্তি হয় গ্রাম আদালতে। নিজ নিজ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এবং আবেদনকারী ও
প্রতিবাদকারী মনোনীত দুইজন করে চারজন প্রতিনিধিসহ পাঁচ সদস্যের সমন্বয়ে গঠিত হয় এ আদালত। গ্রাম আদালত গঠিত হওয়ার পর ১৫ দিনের মধ্যে সভা আহ্বান করা হয়। সভার মাধ্যমে গ্রাম আদালত বসিয়ে মামলা নিষ্পতি করা করা হয়।যার ফিস দেওয়ানী ২০ টাকা
এবং ফৌজদারী ১০টাকা। শিরন্টী ইউনিয়নের গ্রাম আদালত সহকারী আকতারুল ইসলাম জানান, দেশের উচ্চ আদালতগুলোতে যেখানে একটি
মামলা বছরের পর বছর পড়ে থাকছে, সেখানে গ্রাম আদালতে অভিযোগ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তা নিষ্পত্তি করা হচ্ছে।
আশা করি মামলার জট নিরসনে গ্রাম আদালত অন্যদের পথ দেখাবে। এবং এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল বাঁকী অনেক ভালো মানুষ তিনি মামলা পেলে দ্রুত গ্রাম আদালত গঠন করে সঠিক বিচার করে রায় দেন। এতে করে এলাকার মানুষ অনেকটা ভালো আছেন।
গ্রাম আদালত উপজেলা সমন্বয়কারী আব্দুল মতিন জানান,সরকারি সেবা মানুষের দুয়ারে পৌঁছে দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেসব যুগান্তকারী পদক্ষেপ নিয়েছেন, গ্রাম আদালত তার একটি। ছোট-খাটো বিরোধ নিয়ে উচ্চ আদালতে না গিয়ে এলাকার ভুক্তভুগিরা গ্রাম আদালতে এসে অল্প খরচে সবোর্চ্চ সেবা পাচ্ছেন গ্রাম আদালতে দেশের উচ্চ আদালতগুলোতে যেখানে একটি মামলা বছরের পর বছর পড়ে থাকছে, সেখানে গ্রাম আদালতে অভিযোগ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তা নিষ্পত্তি করা হচ্ছে। আশা করি মামলার জট নিরসনে গ্রাম আদালত অন্যদের পথ দেখাবে।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Ateam IT Solution

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ইমেইলে সর্বশেষ সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ সরাসরি আপনার ইনবক্সে পেতে আজই গ্রাহক হোন!

তথ্যের গোপনীয়তা রক্ষায় আমরা সর্বোচ্চ সতর্ক।




এক ক্লিকে জেনে নিন বিভাগীয় খবর

©মেঘনা নিউজ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত