ঢাকা (রাত ১১:২৭) রবিবার, ২৬শে মে, ২০২৪ ইং

নাম পরিবর্তন ও ট্রাস্ট্রি পুনর্গঠন হচ্ছে বাংলাদেশ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের



অনিয়ম-দুর্নীতি ও আর্থিক লুটপাটের কারণে বাংলাদেশ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ড অব ট্রাস্টিজ (বিওটি) পুনর্গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে শিগগিরই এ বিষয়ে একটি প্রস্তাব চ্যান্সেলর তথা রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানো হবে। এছাড়া একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে নামের মিল থাকায় এ বিশ্ববিদ্যালয়ের নামও পরিবর্তন করা হতে পারে।

সম্প্রতি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একটি সভায় বাংলাদেশ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বিওটি পুনর্গঠনের এমন সিদ্ধান্ত হয়েছে। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যান (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর বলেন, ‘বাংলাদেশ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বেশ কয়েকটি নির্দেশনা দিয়েছেন। সেগুলো নিয়ে মন্ত্রণালয় কাজ করছে।’

এর আগে গত বছরের জানুয়ারিতে বাংলাদেশ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বিওটি পুনর্গঠন, নাম পরিবর্তনসহ ১০ দফা সুপারিশ করে প্রতিবেদন জমা দেয় ইউজিসি। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জমা দেওয়া ওই প্রতিবেদনে বিশ্ববিদ্যালয়ের নানা আর্থিক অনিয়ম ও দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়ার কথাও জানায় সংস্থাটি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশে’ নামে ১৯৮০ সালে কুষ্টিয়ায় একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। নামের সাদৃশ্য রয়েছে এমন অন্য কোনো বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করা যাবে না বিধান থাকলেও ‘বাংলাদেশ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়’ নামকরণ করা হয়েছে। তদন্ত কমিটি বিশ্ববিদ্যালয়টির নাম পরিবর্তন করার সুপারিশ করা হয়েছে।

বিওটি সদস্যদের দুর্নীতির বিষয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিওটি চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও সদস্য সচিব মিলে গত ১১টি অর্থ বছরে মাসিক সম্মানী হিসেবে ছয় কোটি ১৩ লাখ ৩২ হাজার টাকা নিয়েছেন। বিওটি চেয়ারম্যান অধ্যাপক কামাল উদ্দীন আবদুল্লাহ জাফরী বিশ্ববিদ্যালয়ের তহবিল থেকে ১১ বছরে মাসিক সম্মানী ও গাড়ি সুবিধা বাবদ তিন কোটি ৬৬ লাখ ছয় হাজার ২১৩ টাকা নিয়েছেন। বিওটি ভাইস চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আনম রফিকুর রহমান এক কোটি ৩৩ লাখ ১৬ হাজার ৪৭৮ টাকা নিয়েছেন। সদস্য সচিব সৈয়দ শহীদুল বারী এক কোটি ১৪ লাখ নয় হাজার ৯৪০টাকা নিয়েছেন।

অথচ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিওটি ডিডে উল্লেখ রয়েছে, এ ট্রাস্ট জনহিতকর, অলাভজনক ও অবাণিজ্যিকভাবে ইসলামী আদর্শে পরিচালিত হবে। কিন্তু বিওটির কয়েক জন সদস্য এটাকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পরিণত করেন বলে অভিযোগ ওঠে। বিওটি সদস্যরা সম্মানী ছাড়াও সিটিং এলাউন্স বাবদ কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। অথচ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার সময় চার জন সদস্য মাত্র এক কোটি ৫৬ লাখ ২৯ হাজার ৮৫৬ টাকা বিনিয়োগ করেন। বিওটি সদস্যদের অবৈধভাবে নেওয়া অর্থ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়ের তহবিলে জমা দেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে প্রতিবেদনে। একই সঙ্গে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) মামলার সুপারিশ করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০০৫ সালে বিশ্ববিদ্যালয়টি সাময়িক অনুমতি নিয়ে চালু করে। অনুমতির মেয়াদ উত্তীর্ণ হলেও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন অনুযায়ী সাময়িক সনদ নবায়নের জন্য আবেদন করেনি। আইন লঙ্ঘন করায় বিশ্ববিদ্যালয়টির সকল শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ করার বিধান রয়েছে। তবে শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যত বিবেচনা করে শিক্ষামন্ত্রণালয় প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণের মতামত দিয়েছে তদন্ত কমিটি।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন অনুযায়ী মেট্রোপলিটন এলাকায় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনে পাঁচ কোটি টাকা ব্যাংকে এফডিআর জমা রাখা বাধ্যতামূলক। এ বিধি লঙ্ঘন করলে পাঁচ বছর কারাদণ্ড অথবা ১০ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের এফডিআরের সুদ ও আসল উত্তোলন করা হয়েছে। দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ তহবিলও আইন অনুযায়ী পরিচালনা হয় না বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, স্থায়ী ক্যাম্পাসের জমি কেনা ও ভবন নির্মাণের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে ১০ কোটি টাকার ব্যাংক ঋণ নেওয়া হয়েছে। জমি কেনা হয়েছে তিন কোটি টাকার। প্রত্যেক অর্থ বছরে বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়-ব্যয়ের নিরীক্ষার বিধান থাকলেও ২০১৬-১৭ অর্থ বছরের পর আর্থিক নিরীক্ষা করা হয়নি। রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) অনুমোদন ছাড়াই রাজধানীর মুগদা গ্রিন মডেল টাউনে স্থায়ী ক্যাম্পাসে ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। আইন কানুনের তোয়াক্কা না করে বিওটি চেয়ারম্যানের আত্মীয়কে ভবন নির্মাণের কাজ দেওয়া হয়েছে। নির্মাণে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে।

প্রতিবেদনের সুপারিশে বলা হয়েছে, সাময়িক সনদের মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় ৩০ দিনের মধ্যে সনদপত্রের জন্য আবেদন করতে হবে। চাকরিচ্যুত ১০ জন শিক্ষককে পুনর্বহাল ও তাদের প্রাপ্য সকল পাওনা পরিশোধ করতে হবে। বেআইনিভাবে বিওটি সদস্যদের গ্রহণ করা অর্থ বিশ্ববিদ্যালয়ের তহবিলে জমা দিতে হবে। অনিরীক্ষত অর্থ বছরের নিরীক্ষা শেষ করতে হবে। অবৈধভাবে ভবন নির্মাণ কাজে জড়িতদের দুদকের মাধ্যমে তদন্ত করে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়েছে।

বিওটি সদস্যদের অদুরদর্শিতা ও অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের কারণে বিশ্ববিদ্যালয়টি আর্থিকভাবে জটিল দৈন্যদশায় পড়েছে। বিওটি সদস্যদের খেয়াল খুশিমত বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা প্রমাণিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়টির চলমান অচলাবস্থা নিরসনে চ্যান্সেলরের এখতিয়ার প্রয়োগ করে জরুরিভিত্তিতে বিওটি পুনর্গঠনের সুপারিশ করেছে তদন্ত কমিটি।

শেয়ার করুন

GloboTroop Icon
পাঠকের মতামত

Meghna Roktoseba




এক ক্লিকে জেনে নিন বিভাগীয় খবর




© মেঘনা নিউজ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by ShafTech-IT