শনিবার , ১৯শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
শিরোনাম :
এবার ঘরে ঘরে মৌসুমী ফল দিলেন চেয়ারম্যান প্রার্থী জাকির হোসেন দাউদকান্দির গোমতী নদীতে চাঁদাবাজি বন্ধের দাবি জানিয়েছেন জাহাজ মালিক সমিতি ভোলায় দুটি মোটরসাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১ গৌরীপুর শিল্পীগোষ্ঠীর সভাপতি আলী মনসুরের মৃত্যুতে শোক ও স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত সাপাহারে হতাশা কাটাতে জমে উঠেছে অনলাইন আম ব্যবসা সাপাহারে সফল উদ্যোক্তার রপ্তানি যোগ্য আম্রপালি আম গেল ইংল্যান্ডে সাপাহারে মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার নতুন ঘর পাবার অপেক্ষায় ৬০ জন গৃহহীন পরিবার পরিবারের জিম্মায় আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনান কুরআন তেলাওয়াত ও ইসলামী সংগীত প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে শেষ করলো দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী  গৌরীপুরে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রশিদের দাফন সম্পন্ন

ভোলায় ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে ১১ হাজার ৩০৯ টি ঘর-বাড়ি বিধ্বস্ত




ভোলায় ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে ১১ হাজার ৩০৯ টি ঘর-বাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। এর মধ্যে সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়েছে ৩ হাজার ৫৭৯টি এবং আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে ৭ হাজার ৭৩০টি ঘর-বাড়ি। এছাড়া ঝড়ের প্রভাবে ভোলা জেলায় অতি জোয়ারে পানিতে প্রায় ২ হাজার পুকুর ও মাছের ঘের তলিয়ে গেছে।

ভোলায় ঝড়ে বিধ্বস্ত দেড় শতাধিক বাড়ি-ঘর

ভোলা জেলায় ৭ উপজেলার মোট ৫১টি ইউনিয়নে কম-বেশি ঘর-বাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। এছাড়া তজুমদ্দিন উপজেলা সহ বিভিন্ন চরাঞ্চলে প্রায় ২ হাজার গরু-মহিষ নিখোঁজ রয়েছে।

ভোলা জেলা ত্রাণ ও পূনর্বাসন অফিস স‚ত্র জানিয়েছে, ভোলা সদরে ২৯০টি ঘর-বাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। এর মধ্যে সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত ৮০টি এবং আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে ২১০টি ঘরবাড়ি।

দৌলতখান উপজেলায় ঘরে ৩৫০টি ঘর-বাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। যার মধ্যে সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত ৬০ এবং আংশিক বিধ্বস্ত ২৯০টি।

বোরহানউদ্দিন উপজেলায় ২২০টি ঘর-বাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। এর মধ্যে সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়েছে ২০ টি এবং আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে ২০০টি ।

লালমোহন উপজেলায় ঝড়ে আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে ১২০টি ঘর-বাড়ি ও ঝড়ের সময় গাছ চাপা পড়ে ১ জনের মৃত্যু হয়েছে।
তজুমদ্দিন উপজেলায় বিধ্বস্ত ৬ হাজার ঘর-বাড়ি। এর মধ্যে সম্পূর্ণ ৩ হাজার এবং আংশিক ৩ হাজার।

চরফ্যাশন উপজেলায় ঝড়ের প্রভাবে বিধ্বস্ত হয়েছে ১৭০টি ঘর। এর মধ্যে সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত ৯৯টি এবং আংশিক বিধ্বস্ত ৭১টি।
মনপুরা উপজেলায় ঝড়ে বিধ্বস্ত হয়েছে ৪ হাজার ৬০টি ঘর। এখানে সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়েছে ৩২০টি ঘর এবং আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে ৩ হাজার ৭৪০টি ঘর-বাড়ি। এছাড়া মনপুরায় ৬৪৫ টি পুকুর ও মাছের ঘের তলিয়ে গেছে অতি জোয়ারের পানিতে।

ক্ষয়-ক্ষতির দিক থেকে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে জেলার তজুমদ্দিন উপজেলা এবং কম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে লালমোহন উপজেলা। এছাড়া তজুমদ্দিন উপজেলার বিভিন্ন চরে ৮শ গরু এবং ১২শ মহিষ নিখোঁজ রয়েছে।

ভোলা জেলা ত্রাণ ও পূনর্বাসন কর্মকর্তা মো. মোতাহার হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ক্ষতিগ্রস্তদের পূনর্বাসন করা হবে। এছাড়া প্রাথমিক পর্যায়ে ক্ষতিগ্রস্ত ৫১টি ইউনিয়নে গড়ে আড়াই লাখ টাকা করে দেওয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন, নিখোঁজ গরু-মহিষের মধ্যে কিছু কিছুর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে, তার তালিকাও করা হচ্ছে।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

পাঠকের মতামত




ই-মেইলে সর্বশেষ সংবাদ

বিনামূল্যে সর্বশেষ সংবাদ সরাসরি আপনার ই-মেইলে পেতে আজই সাবস্ক্রাইব করুন!

তথ্যের গোপনীয়তা রক্ষায় আমরা সর্বোচ্চ সতর্ক।
আমাদের গোপনীয়তার নীতি




এক ক্লিকে জেনে নিন বিভাগীয় খবর




করোনা তথ্য
দেশে আক্রান্ত
৮,৪৪,৯৭০
১৯ জুন, ২০২১
করোনা তথ্য
দেশে সুস্থ
৭,৭৮,৪২১
জুন ১৯, ২০২১
করোনা তথ্য
দেশে মৃত্যু
১৩,৩৯৯
জুন ১৯, ২০২১
করোনা তথ্য
বিশ্বে মৃত্যু
৩৮,৬৯,০৪৭
জুন ১৯, ২০২১
করোনা তথ্য
বিশ্বে আক্রান্ত
১৭,৮৭,০০,১৭১
জুন ১৯, ২০২১
©মেঘনা নিউজ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত