সোমবার , ১লা জুন, ২০২০ ইং
মোট আক্রান্ত

৩৬৭৫১

সুস্থ

৭৫৭৯

মৃত্যু

৫২২

ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর

মিথ্যা অপবাদের অভিযোগ নিয়ে মাংস বিক্রেতার সংবাদ সন্মেলন

মিথ্যা অপবাদের অভিযোগ নিয়ে মাংস বিক্রেতার সংবাদ সন্মেলন

Ad_970x120

মোরশেদ আলম, যশোর প্রতিনিধিঃ  যশোর বেনাপোল বাজারের সবচেয়ে বড় মাংস বিক্রেতা মিজানের বিরুদ্ধে মিথ্যা-অপবাদ দেওয়া হয়েছে বলে সংবাদ সন্মেলন করেছেন তিনি। শনিবার(১৬ মে) সন্ধ্যার দিকে স্থানীয় সীমান্ত প্রেসক্লাব বেনাপোল কার্যালয়ে এই সংবাদ সন্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে ঐ ক্লাবের বিভিন্ন পত্র-পত্রিকার সাংবাদিকবৃন্দ অংশ নেন।

সংবাদ সন্মেলনে মাংস বিক্রেতা গভীর দুঃখের সাথে সাংবাদিকদের জানান, শুক্রবার সকালে ডব্লিউ মার্কেটের মোবাইল দোকানদার সাংবাদিক পরিচয়ধারী মোস্তাফিজুর রহমান বাবু আমার দোকানে আসে মাংস কিনতে। প্রতি কেজি মাংসের দাম কত সে জিজ্ঞাসা করে,  আমি বলি ৫৫০ টাকা, সে বলে কম হবে না, আমি তাকে বলি গরুর যে দাম তাতে করে কম দেওয়ার কায়দা নেই, দুই কেজি মাংস এক হাজার টাকায় দিবি, আমি তাকে অপারগতার কথা স্বীকার করি, দর কষা-কষির এক পর্যায়ে হঠাৎ সে ক্ষীপ্ত হয়ে বলে, এ তুই পঁচা মাংস বিক্রি করিস, এ মাংসও পঁচা, আমি তাকে বলি-সকাল থেকে প্রায় ৪ মন গোস্তর মধ্যে ৩ মন গোস্ত আমি বিক্রি করেছি, পঁচা মাংশ বলে কেউ তো অপবাদ দেয়নি, এই কথা বলার পর সে আমার উপর উত্তেজিত হয়ে ওঠে এবং লোকজন জড়ো করতে থাকে, এরপর সে তার মোবাইলে আমার এবং মাংসের ছবি ভিডিও আকারে ধারন করে।

কিছুক্ষন পর সে থানায় ফোন করে আমার দোকানে পুলিশ নিয়ে আসে, পুলিশকে উল্টা-পাল্টা বোঝাতে শুরু করে, এ ব্যাপারে পুলিশ আমাকে জিজ্ঞাসা করলে আমি বেনাপোল পৌরসভা কর্তৃক গরু জবাই এর পৌর টোল আদায়ের রশিদ দেখাই। ঐ সময় খবর পেয়ে পৌর কসাই খানার দায়িত্বে থাকা পৌর স্যানিটারি ইন্সপেক্টর রাশিদা বেগম আমার দোকানে আসেন। সেখানে এই মাংসের ব্যাপারে তাকে প্রশ্ন করা হলে, রাশিদা বেগম সকলের উদ্দেশ্যে বলেন, বেনাপোল পৌর কসাই খানায় কোন প্রকার রুগ্ন গরু জবাই হয়না, টোল আদায়ের রশিদ তা প্রমান করে, এক পর্যায়ে বাবু উত্তেজিত হয়ে বলে আমি সাংবাদিক, ইন্সপেক্টরকে সে বলে, আপনি কত টাকা ঘুষ খেয়েছেন, এর প্রতিত্তোরে রাশিদা বেগম তাকে সাবধান করে দিয়ে বলেন, আপনার কথা-বার্তা ঠিক হচ্ছেনা।

কথা কাটাকাটির এক পর্যায় তারা আমার প্রায় এক মন মাংসে কেরোসিন ঢেলে বাজারের পাশের একটি ময়লা খানায় মাটি চাপা দিয়ে দেয়। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মিজান বলেন, বংশগতভাবে তিন পুরুষ মিলে বেনাপোল গোঁশ মার্কেটে অত্যান্ত সুনামের সাথে মাংস বিক্রি করে আসছি, রুগ্ন কিংবা পঁচা মাংশ বিক্রি’র স্ব-পক্ষে কোন প্রমানাদি কেউ কোনদিন দিতে পারেনি। সাংবাদিক মোস্তাফিজুর রহমান বাবুর অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং ভিত্তিহীন। অমানবিক বিবেচনায় আমার মত গরীব অসহায় মানুষকে ভীষনভাবে ক্ষতিগ্রস্থ করেছে। পঁচা মাংস বিক্রি’র যে অপবাদ আমাকে দেওয়া হয়েছে,তাতে করে আমি আমার পরিবার-পরিজন নিয়ে সন্মানহানীকর পরিস্থিতির মধ্যে অসহায় হয়ে পড়েছি। সাংবাদিক বাবুর এহনো কর্মকান্ডের তীব্র প্রতিবাদ জানাই। মিজান অনুরোধ জানিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, অতীতে আমার পূর্ব পুরুষেরা বেনাপোল বাজারে যে ভাবে সুনামের সাথে কাজ করে গেছেন,আমিও ঠিক সেইভাবে কাজ করে যেতে চাই। এই জন্য এই মুহুর্তে সাংবাদিকদের সহায়তা আমার একান্ত প্রয়োজন।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Ad_970x120

ইমেইলে সর্বশেষ সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ সরাসরি আপনার ইনবক্সে পেতে আজই গ্রাহক হোন!

তথ্যের গোপনীয়তা রক্ষায় আমরা সর্বোচ্চ সতর্ক।




এক ক্লিকে জেনে নিন বিভাগীয় খবর

Ad_970x120

©মেঘনা নিউজ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত